Bangladesh

বদনা আবিষ্কারের ইতিহাস !

জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকা এ বদনার ইতিহাস আমরা জানবো না, তা তো হয়না। চলুন জেনে নেয়া যাক বদনার ইতিহাস।
বই নয়, বদনা আমাদের সবচেয়ে বড় বন্ধু। প্রাচীনকাল থেকে এ কথাটি প্রতিধ্বনিত হয়ে আসছে সত্যরুপে। একদিন বদনা ছাড়া জীবন যেনো অচল। জীবনের চলার পথে কোনো একদিন ঠিকই আপনাকে থমকে দাঁড়াতে হয়েছে বদনার অনুপস্থিতিতে। কি? ভুল বললাম?

বাংলার প্রাচীন নবাব ইসমাইল হোসেনের হাত ধরে উপমহাদেশে বদনার আগমণ ঘটে। তিনিই সর্বপ্রথম নলী যুক্ত বদনা আবিষ্কার করেন। যদিও সেটি দেখতে ছিলো বালতির মত। কারণ তখনকার সময় বদনা না থাকায় মানুষ শৌচকার্যের জন্য বালতি ব্যবহার করত। মাথার উপর দিয়ে বালতি ঘুরিয়ে পিঠের উপর পানি ঢেলে দিত।

এভাবেই তাদের কষ্ট করে পরিচ্ছন্ন হতে হত। বাদশা ইসমাইল তাদের দুর্ভোগ দেখে বালতি ফুটা করে পাইপ ল‍াগিয়ে দেন। সেখান থেকেই বদনার উৎপত্তি। তারপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। সময়ের সাথে সাথে আপগ্রেডেড হয়ে বদনা হয়ে গেছে ক্ষুদ্র থেকে ক্ষুদ্রতর যদিও অনেকে বলে বদনা শহীদ জিয়ার স্বপ্ন। শহীদ জিয়ার আবিষ্কার। কিন্তু এটি পুরোই ভুল। বদনা আসলে বাদশাহ ইসমাইলের আবিষ্কার।বাঙ্গালী হয়ে জন্মেছেন কিন্তু বদনার ইতিহাস জানেন না? ধিক্কার আপনাকে।

বাসর রাতে বউয়ের ঘোমটা খুলেই ব্যাঙ এর মতো লাফাইতে লাফাইতে ভূত বলে চিৎকার করে খাট থেকে নিচে পড়ে গেলাম। দরজা খুলেই উসাইন বোল্টের গতিতে দৌড়ে অন্য রুমে গিয়ে দরজা আটকে দিলাম। আর চিন্তা করতে লাগলাম এটা কিভাবে সম্ভব? একটা মেয়ে চৌদ্দ বছর পরেও কিভাবে এরকম তরুণী চেহারায় থাকতে পারে? আর চৌদ্দ বছর আগেও তো জুমু আরও একটু যুবতি ছিলো।

মানুষ ক্রমে বড় হয়? জুমু কি ক্রমে ছোট হচ্ছে? আর কেনই বা সে আমাকে বিয়ে করতে যাবে? চৌদ্দ বছর আগের ঘটনা মনে পড়তেছে…. আমি বেকার বলে আমাকে ছ্যাকা দিয়ে জুমু অন্য একটা ছেলেকে বিয়ে করে ফেলে। সেই দুঃখে আমি আর বিয়েই করিনি। বাবার ব্যবসা দেখাশুনা করতে থাকলাম।

কিন্তু আম্মুর শরীর খুব খারাপের দিকে যাওয়ায় আব্বু এক প্রকার জোর করে ধরে বেঁধে বিয়ে দিয়ে দিছে। দরজার ওপাশ থেকে আব্বু চিৎকার করছে, ‘ওই হিমু হারামজাদা? তোর হয়েছেটা কি? বয়স হয়ছে তবু তোর পাগলামী যাবেনা তাইনা?’ আব্বুকে ভিষন ভয় পাই। তাই কাঁপতে কাঁপতে রুম থেকে বের হলাম। আব্বুর পাশেই দেখি আমার বউ কান্না করতাছে। আবারও বাসর ঘরে ঢুকে এবার বউকে নরম সুরে জিজ্ঞেস করলাম, ‘জুমু? তোমার এখনো এই কচি চেহারা কি করে?

বউ বললো, ‘জুমু তো আমার মায়ের নাম, আর আপনি আমার মায়ের নাম জানেন কি করে? অবশ্য আমি আমার মায়ের চেহারাই হয়েছি। যাকে বলে যমজ’ বউয়ের কথা শুনে বুঝলাম, ‘সবুরে আসলেই মেওয়া ফলে, সবুর করলে প্রেমিকা কে বউ হিসেবে পাওয়া না গেলেও শাশুড়ি হিসেবে পাওয়া যায় ।
সংগ্রহ