Entertainment

আমার বয়স নাকি ৪৬!

কিছুদিন যাবৎ শোনা যাচ্ছে জয়া আহসানের বয়স নাকি ৪৬। নতুন ছবি ‘ক্রিসক্রস’-এর টিজার ও গান মুক্তির পর অপ্রত্যাশিত সাড়া পেয়েছেন তিনি। সিনেমার পাশাপাশি বয়সের বিষয়টি নাকি ভাবাচ্ছে বাংলাদেশের গুণী এই শিল্পীকে।

জয়াকে নিয়ে অনেক সময় নিন্দুকেরা অনেক কথা বললেও কখনো কোন কথা নিয়ে মন খারাপ করেন নি তিনি। নিদুকের কথা তিনি গুরুত্ব সহকারে নেন এবং নিজের ভুল ঠিক করতে চেষ্টা করেন। কিন্তু ইদানিং যে বিষয়টি নিয়ে কথা হচ্ছে সেটি মেনে নিতে পারে পারছেন না তিনি।

জয়া আহসান বলেন, ‘ইদানীং বেশ কয়েকজন বিভিন্ন পত্রপত্রিকা/উইকিপিডিয়ার তথ্যসূত্র টেনে আমার বয়স নিয়ে বেশ চর্চা করছেন। বলা হচ্ছে, আমার বয়স নাকি ৪৬! অনেকে আবার প্রশ্ন তুলছে আমার বয়স ৫৬ নাকি ৪৬! গুজব-গুঞ্জন আমি বরাবরই খাবারের লবণের মতো উপভোগ করেছি। দু-একজন সমবয়সী কিংবা আমার চেয়ে বয়সে বড় শ্রদ্ধাভাজন কয়েকজন অভিনেত্রী নিজেদের অধিকার মনে করে গণমাধ্যমে আমার বয়সের ভুল তথ্য নিয়ে চর্চা করেছেন—বিষয়টি মজার। এত দিন উপভোগ করেছি, তবে খুব সম্ভবত আমার চুপ থাকাটায় অনেকে “মৌনতা সম্মতির লক্ষণ” হিসেবে ধরে নিয়েছেন। নিন্দুকেরাও আমার বয়সের ভুল তথ্য প্রচার করে আনন্দ পাচ্ছেন!’

তিনি এ সম্পর্কে শেষ বারের মতো একটি কথাই বলেন ‘বয়স নয়, একজন শিল্পীর প্রকৃত পরিচয় হওয়া উচিত তাঁর কাজে। ৪৬ কিংবা ৫৬ কিংবা তার চেয়ে বেশি বয়স হলেই অভিনেত্রীরা কাজের অযোগ্য কিংবা তারুণ্যদীপ্ত চরিত্রে অভিনয় করতে পারবেন না—এমন ধারণা বিশ্বের কোনো চলচ্চিত্রশিল্পই পোষণ করে না। তাই ব্যক্তি জয়া আহসানের যে বয়স, তা নিয়ে আমি এতটুকু বিচলিত নই।’

তিনি সবশেষে সাংবাদিকদের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেছেন,
‘ভুল তথ্য প্রচার করে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে হেয় করার চেষ্টা থেকে বিরত থাকার জন্য। প্রকৃত সত্য হলো, ৪৬ বছর আগে আমার বাবা-মার বিয়ে তো দূরের কথা, দেখাও হয়নি। এত দিন বিষয়টি হেসেই উড়িয়ে দিয়েছি। তবে ইদানীং বিষয়টি মাত্রাতিরিক্ত আকার ধারণ করায় পরিবার ও কাছের বন্ধুদের অনুরোধে বলতে বাধ্য হয়েছি।’