Entertainment

নায়ক জসিম সম্পর্কে ১০টি অজানা তথ্য

বাংলা সিনেমার বটগাছ নায়ক জসিম। তাকে মনে করা হয় বাংলা সিনেমার প্রধান নায়ক। ছোটবেলায় প্রতি শুক্রবার বিটিভির পর্দায় জসিমের ছবি দেখতে দেখতে আপনি আমি আমরা সবাই ভেবেছি, নায়কদের তালিকায় জসিমের রোল নাম্বার এক। কারণ তাকে কখনো গুটি করতে দেখা যায়নি। অন্য নায়কদের মত তাকে বৃষ্টিতে ভিজে নাচগানও করতে দেখা যেত না। টিভিতে সবচেয়ে বেশি দেখাতো জসিমের ছবি। সে থেকেই এরকম একটা ধারণা জন্ম নেয় নব্বই দশকের কোমলমতি শিশুদের মনে। যা কিনা এখনো বিদ্যমান ! ‍

রুপালী পর্দার নায়ক হিসেবে পরিচিত হলেও জসিমের অভিনয় জীবনের শুরুটা হয়েছিলো ভিলেন হিসেবে। গুগল উইকিপিডিয়া ঘাটলে এই মহানায়ক সম্পর্কে খুব কম তথ্যই পাওয়া যাবে। তবে পাঠক ও দর্শকদের কৌতুহল মেটাতে তাকে নিয়ে অসংখ্য রহস্যময় তথ্য আমরা অনুসন্ধান চালিয়ে খুঁজে খুঁজে বের করে নিয়ে এসেছি। চলুন জেনে নেয়া যাক, জসিম সম্পর্কে রহস্যজনক কিছু তথ্য !

সন্তানের সাথে নায়ক জসিম
সন্তানের সাথে নায়ক জসিম

নায়ক জসিম সম্পর্কে ১০টি অজানা তথ্য

  1. নায়ক রিয়াজকে নিজহাতে অভিনয়ে এনেছিলেন নায়ক জসিম ! ১৯৯৪ সালে রিয়াজ তার চাচাত বোন ববিতার সাথে এফডিসি -তে ঘুরতে এসে নায়ক জসিমের নজরে পড়েন। জসিম তখন তাকে অভিনয়ের প্রস্তাব দেন। ১৯৯৫ সালে জসিমের সাথে ‘বাংলার নায়ক’ নামের একটি ছবিতে অভিনয় করেন রিয়াজ।
  2. জসিম ছিলেন একজন দুঃসাহসী মুক্তিযোদ্ধা। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে দুই নম্বর সেক্টরে মেজর হায়দারের নেতৃত্বে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে জসিম লড়াই করেছিলেন।
  3. জসিমের প্রথম স্ত্রী ছিলেন ড্রিমগার্ল খ্যাত নায়িকা সুচরিতা ! পরে তিনি ঢাকার প্রথম সবাক ছবির নায়িকা পূর্ণিমা সেনগুপ্তার মেয়ে নাসরিনকে বিয়ে করেন।
  4. জসিমের আসল নাম আবদুল খায়ের জসিম উদ্দিন।
  5. ১৯৭৩ সালে জসিম প্রয়াত জহিরুল হকের ‘রংবাজ’ (বাংলাদেশের প্রথম অ্যাকশন দৃশ্য যুক্ত করা ছবি) ছবিতে খলনায়ক হিসেবে অভিনেতা হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করেন।
  6. একই পরিচালকের পরিচালনায় ‘সবুজ সাথী’ চলচ্চিত্রে তিনি প্রথম প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন।
  7. দেওয়ান নজরুলের ‘দোস্ত দুশমন’ ছবির মাধ্যমে জসিম আলোড়ন তোলেন। ‘দোস্ত দুশমন’ ছবিটি হিন্দি সাড়াজাগানো ফিল্ম ‘শোলে’ ছবির রিমেক। ছবিটিতে তিনি গব্বারের চরিত্র করেছিলেন। খোদ শোলে ফিল্মের নামকরা চরিত্র গব্বার সিং এর আদলে থাকা ভারতীয় খলনায়ক আমজাদ খান পর্যন্ত ভূয়সী প্রশংসা করেছিলেন জসিমের।
  8. জসিমের মৃত্যুর পর এফডিসিতে তাঁর নামে একটি ফ্লোরের নামকরণ করা হয়।
  9. তিনিই একমাত্র নায়ক, যিনি শাবানার সাথে একই সাথে প্রেমিক এবং ভাইরূপে চরিত্রদান করেছিলেন এবং দুটি চরিত্রই দর্শকরা খুব সাদরে গ্রহণ করেছিলেন। উদাহরণস্বরূপ, যে শাবানা ‘সারেন্ডার’ ছবিতে জসিমের প্রিয়তমা হিসেবে সফল হয়েছেন, সেই শাবানা ‘অবদান’, ‘মাস্তান রাজার’ মতো ছবিতে জসিমের বড় বোন হয়ে সফল হয়েছিলেন।
  10. জসিমের তিন ছেলে। রাতুল, রাহুল, সামি। যার মধ্যে রাতুল ও সামি ‘Owned’ ব্যান্ডের বেজিস্ট ও ড্রামার (এই ব্যান্ডদল বর্তমানে অনেক ট্রেন্ডিং ব্যান্ড)। রাহুল ‘Trainwreck’ ব্যান্ডের গিটারিস্ট (এই ব্যান্ডের ড্রামারই পরে অর্থহীন ব্যান্ডে যোগ দিয়েছেন) আর সামি ‘Porahor’ এর ড্রামার।

অমর এই মহানায়ক ১৯৯৮ সালের ৮ অক্টোবর মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে পরলোকগমন করেন। তার মৃত্যুতে বাংলা চলচ্চিত্র শিল্পের অপূরণীয় ক্ষতি হয়।

আরো পড়ুনঃ  নায়ক জসিমের সাথে সম্পর্ক কেমন ছিলো শাহরুখ খানের ?