Exclusive

কুমিল্লাকে মুতিল্লা বলায় মিরপুরের বন্ধুকে মারলো কুমিল্লার বন্ধু

ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বৃহত্তর চট্টগ্রামে যাতায়াতকালে কমবেশ প্রায় সব বাসই কুমিল্লায় অবস্থানকালে কিছুক্ষণের জন্য বিরতি নেয়। একে ঘিরেই কুমিল্লার বিভিন্ন হাইওয়ে রেস্তোরায় গড়ে উঠেছে রমরমা বাণিজ্য। দীর্ঘ যাত্রাপথের ক্লান্তি মেটাতে অনেকেই এসব হাইওয়ে রেস্তোয়ায় গিয়ে ফ্রেশ হতেন, কেউ খাবার কিনে বাসে ফিরে আসতেন, কেউ রেস্তোয়ায় বসেই খাবার খেয়ে একটু স্বস্তির শ্বাস নিতেন। আবার কেউবা হোটেলের দোতলায় গিয়ে মুতে হাতমুখ ধুয়ে চুলে স্পাইক করে বাসে ফিরে এসে কুমিল্লায় মুততে নেমেছেন বলে ফেসবুকে পোস্ট দিতেন।

( ভিডিওতে দেখুন মুতিল্লার বন্ধুর মারামারির দৃশ্য )

এসব নিয়েই দীর্ঘদিন যাবৎ দেশের বিভিন্ন জেলার মানুষদের সাথে মন কষাকষি চলছিলো কুমিল্লার বাসিন্দাদের। এবার সেই অভিমানের জায়গা থেকেই ক্রোধের তাপদাহ ফুঁসলে বেরিয়ে এসে আগুনে পরিণত হত ঢাকায় ! কুমিল্লাকে ট্রল করে মুতিল্লা বলায় মিরপুরের বন্ধু শাহিনকে মারলো কুমিল্লার বন্ধু ইলিয়াস। আজ দুপুরে ঢাকার খিঁলগাও এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটেছে।

জানা যায়, রাঙামাটির সাজেক ট্যুর দিয়ে ফিরে আসার সময় পথিমধ্যে তাদের বাস কুমিল্লার একটি হাইওয়ে রেস্তোরায় থেমেছিলো। কুমিল্লার ছেলে ইলিয়াস তখন ঘুমিয়ে ছিলো। তাকে না বলেই মিরপুরের শাহিন বাস থেকে নেমে ফেসবুক লাইভে গিয়ে নুরজাহান রেস্তোরার দোতলায় গিয়ে মুতে পানি না ঢেলেই চলে আসে। পুরো ঘটনাটি সে তার ফেসবুক একাউন্ট থেকে লাইভ সম্প্রচার করে। এবং এরপরপরই সে “মুতিল্লায় আসলাম বন্ধুরা, কেমন আছো” লিখে কুমিল্লায় চেকইন মেরে একটি স্ট্যাটাস দেয়।

সকালে বাসায় ফিরে ঘুমিয়ে গেছিলো ইলিয়াস। ঘুম থেকে উঠে গা-গোসল ধুয়ে দুপুরে ভাত খেয়ে ফেসবুকে ঢুকেই শাহিন দেখতে পান, তাকে ইলিয়াসের পোস্টে মেনশন করে সবাই হাসিঠাট্টা করছে। এর পরপরই ইলিয়াস তার লাঠি দিয়ে শাহিনকে বেধড়ক পেটাতে থাকেন। তিনি শাহিনের মুখে লাঠি দিয়ে ক্রমাগত দুর থেকে ছুটে এসে খোঁচা দিয়ে আঘাত করতে থাকেন। একপর্যায়ে শাহিন অসুস্থ হয়ে যায়।

এ ঘটনায় শাহিনকে তার আব্বু মিরপুরের একটি হসপিটালে নিয়ে চিকিৎসা করিয়ে এনেছে এবং ভবিষ্যতে কখনো কুমিল্লাকে মুতিল্লা বলে যেনো না ডাকে, সে বিষয়ে সতর্কতা জানিয়ে দিয়েছেন।